বাইডেন-পুতিন বৈঠকে ভাঙা সম্পর্ক কি গড়বে?

বাইডেন-পুতিন বৈঠকে ভাঙা সম্পর্ক কি গড়বে?

মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতা গ্রহণের পর জো বাইডেন আর রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন প্রথমবারের মতো মুখোমুখি হতে চলেছেন। আগামী ১৬ জুন সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় অনুষ্ঠেয় বৈঠকে মিলিত হবেন তারা। গেল কয়েকদিন ধরেই এ বৈঠক নিয়ে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ওয়াশিংটন-মস্কো সম্পর্কের ব্যাপক অবনতি হয়েছে বলে বক্তব্য করেছিলেন পুতিন। রোববার পুতিনের সে কথা স্বীকার করেন বাইডেন। তবে পুতিনের আন্তর্জাতিক রীতি ভাঙার কারণেই সম্পর্কের এমন অবনতি বলে অভিযোগ তোলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

এদিকে রুশ গণমাধ্যমকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে পুতিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো করার আশা শোনান। এসময় তিনি সাইবার অপরাধী বিনিময়েরও প্রতিশ্রুতি দেন। আর এ বিষয়ে দুই দেশের মধ্যে একটি চুক্তি প্রয়োজন বলেও মনে করেন তিনি।

পুতিন বলেন, সবকিছুরই সুবিধা অসুবিধা আছে। দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে। তারপরও ক্রমেই সম্পর্কের অবনতিই হচ্ছে। কিন্তু এই বিরোধপূর্ণ পরিস্থিতির অবসান হওয়া জরুরি বলেই আমি মনে করি। আশা করছি, তিনিও একই মনোভাব নিয়ে আলোচনায় আসবেন। তারা যদি সন্ত্রাস দমনে আমাদের সহায়তা করে, তবে যুক্তরাষ্ট্রে অপরাধ দমনে আমরাও এগিয়ে যাবো।

এর আগে, সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বেশ ভালোই সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল পুতিনের। ২০১৬ সালে এই প্রভাবশালী দুই দেশের নেতা প্রকাশ্যে সমর্থন দেন একে অপরকে। পুতিন দুইদিন আগেও ট্রাম্পকেই অসাধারণ ও মেধাবী ব্যক্তি বলে উল্লেখ করেন। তবে, বাইডেন ট্রাম্পের মতো আবেগপ্রবণ হবেন না এমন ধারণা থেকে পুতিন বলেন, বাইডেন পেশাদার রাজনীতিবিদ।