দেনমোহর কি? আইন এবং হাদিস কি বলে?

দেনমোহর কি? আইন এবং হাদিস কি বলে?

দেনমোহরঃ মুসলিম শরীয়া মতে দেনমোহর হচ্ছে বিয়ের সময় স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে প্রদেয় সম্পদ যা তাকে সম্মানিত করে। অন্য ভাবে বললে মহান আল্লাহতালা কর্তৃক নির্দেশিত স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে অপরিহার্য প্রদেয় সম্পদ। বিয়ের সময় স্ত্রীকে দেনমোহর প্রদান করা স্বামীর উপর ফরয। দেনমোহর স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে পরিশোধ যোগ্য একটি আইনগত দায়। আন্য ভাবে দেনমোহর হলো একটি বৈধ বিবাহে স্বামী তার স্ত্রীকে মর্যাদার প্রতীক হিসেবে যা প্রদান করেন তাকেই দেমোহর বলে । হিন্দু বা সনাতন ধর্মে দেনমোহর বলে না বিয়ের সময় উপহার হিসেবে যা কিছু পায় সে সবকিছু নববধূর যা স্ত্রী ধন হিসেবে প্রচলিত।

দেনমোহরের প্রকারঃ সাধারনত দুই প্রকার হয়ে থাকে। (ক) তাৎক্ষণিক দেনমোহর (খ) বিলম্বিত দেনমোহর। তাৎক্ষণিক দেনমোহর স্ত্রী চাওয়া মাত্র পরিশোধ করতে হয়। আর বিলম্বিত দেনমোহর বিয়ের পর যেকোন সময় পরিশোধ করা যায় তবে মৃত্যু বা বিবাহ বিচ্ছেদের পর দেনমোহর অবশ্যই পরিশোধ করতে হবে। তখন দেনমোহর স্ত্রীর কাছে স্বামীর ঋণ হিসেবে থাকে।

মোহরানা কেমন হওয়া উচিতঃ

দেনমোহর মূলত স্বামীর আয় এর সঙ্গে মিল রেখে নির্ধারণ করতে হয়। দেনমোহরের পরিমাণ নির্ধারণ করতে স্ত্রীর পারিবারিক অবস্থান ও স্বামীর আর্থিক সামর্থ্য বিবেচনা করা হয়ে থাকে। দেনমোহর এত বেশি হওয়া উচিত নয় যা স্বামীর পক্ষে পরিশোধ করা সম্ভব নয় আবার এত কম হওয়া উচিত নয় যা স্ত্রীর আর্থিক নিরাপত্তা দিতে পারে না। হাদিসের ব্যাখ্যা মতে, স্বামীর যতটুকু সামর্থ্য আছে তার মধ্যে দেনমোহর নির্ধারণ করা উচিত। দেনমোহর যাই নির্ধারণ করা হোক না কেন স্বামী যেন তা নগদ পরিশোধ করতে পারেন। স্বামী যদি বিবাহ সময় দেনমোহর পরিশোধ করতে না পারে এবং স্ত্রী যদি তার দাবী না ছাড়েন অর্থাৎ স্ত্রী চাইলে পুরো দেনমোহর বুঝে না পাওয়া পর্যন্ত স্বামী তাকে স্পর্শ করতে পারবেন না বা স্ত্রীর চাইলে আলাদা রাত্রি যাপন করতে অধিকারী হবেন। স্বামী যদি জোর করে তাহলে স্ত্রী তার জন্য হারাম হবে। যদিও বর্তমান সমাজে অধিক দেনমোহর নির্ধারণ করা একটি ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে যা স্বামী পরিশোধ করতে পারবে কি পারবে না তা বিবেচনা করা হয় না।

দেনমোহর নিয়ে ভুল ধারণাঃ আমাদের সমাজে এখনো অনেকের ধারণা স্ত্রী কর্তৃক স্বামীকে তালাক দিলে স্ত্রী আর দেনমোহর দাবি করতে পারে না। বা স্বামীকে আর বাকি দেনমোহর পরিশোধ করতে হয় না এটি একটি ভুল ধারণা মাত্র। স্ত্রী আইনগত ভাবেই স্বামীর কাছে দেনমোহর দাবি করতে পারবে এবং চাইলে পারিবারিক আদালতে মামলা করেও দাবি আদায় করে নিতে পারবে। আরেকটা ভূল ধারনা আছে যে, স্বামী মারা গেলে স্ত্রী আর বাকি দেনমোহর দাবি করতে পারে না যা সম্পূর্ণ ভুল। দেনমোহর পরিশোধ না করা পর্যন্ত এ অধিকার বহাল থাকে। আইনগত প্রয়োজনে স্বামীর সম্পত্তি থেকে স্ত্রী তা আদায় করে নিতে পারবেন। হাদিসে বর্ণনা অনুসারে যদি মৃত ব্যক্তি একাধিক ব্যক্তির কাছে ঋণী থাকেন তবে তার রেখে যাওয়া সম্পত্তি বিক্রি করে সর্বপ্রথম আগে স্ত্রীর মোহরানা পরিশোধ করার তাগাদা দেয়া হয়েছে। পরবর্তীতে অন্য পাওনাদারের পাওনা পরিশোধ করতে হবে। এই উদাহরণ থেকে দেনমোহরানা পরিশোধের গুরুত্ব বোঝা যায়।

মোহরানা পরিশোধের কিছু ব্যতিক্রমঃ

যখন স্ত্রী অর্ধেক দেনমোহর পাবে? যদি বিবাহ বৈধ হয় এবং দেনমোহর নির্ধারণ করা হয় যদি স্ত্রীর সাথে শারীরিক সম্পর্ক ব্যতীত অন্য কোন কারণে বিবাহবিচ্ছেদ ঘটে তাহলে স্ত্রী অর্ধেক দেনমোহর পাবেন। এছাড়াও যদি বিয়েটা অনিয়মিত হয় স্বামী-স্ত্রীর মাঝে সহবাস না হলে কোন পক্ষের মৃত্যু বা ডিভোর্সে যেভাবেই বিবাহের সমাপ্তি ঘটুক না কেন দেনমোহর নির্ধারিত হোক বা না হোক স্ত্রী কোন দেনমোহর লাভ করে না। এখানে উল্লেখ্য যে বিয়ে নানা কারণেই অনিয়মিত হতে পারে যেমন, সাক্ষীর উপস্থিত না থাকা, ৪ জন স্ত্রী বর্তমান থাকা অবস্থায় পঞ্চম স্ত্রী গ্রহণ, ইদ্দতকালে বিয়ে, নিষিদ্ধ সম্পর্কে বিয়ে ইত্যাদি।।

আবেদুর রহমান (সবুজ)

অ্যাডভোকেট জজ কোর্ট, গাইবান্ধা ও ঢাকা।