অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে দারিয়াপুরের ৬টি সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যপদ স্থগিত 

অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে দারিয়াপুরের ৬টি সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যপদ স্থগিত 

স্টাফ রিপোর্টারঃ সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ে চারুশিল্প ও থিয়েটার খাতের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে গাইবান্ধার সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট কর্তৃক দারিয়াপুরের ৬টি সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যপদ সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে। এছাড়া এই অনিয়শ ও দুর্নীতি তদন্তে ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট গাইবান্ধা জেলা শাখার সভাপতি আলমগীর কবির বাদল রোববার (২৭ জুন) স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে। 

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, গাইবান্ধার স্টেশন রোডের সোহাগ বডিং এর ছাদে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, গাইবান্ধার কার্যনির্বাহী পরিষদের এক জরুরী সভা রোববার  সংগঠনের সভাপতি আলমগীর কবির বাদলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অনুদানকৃত প্রতিষ্ঠানের অর্থ বরাদ্দ সংক্রান্ত বিষয়ে সদর উপজেলার দারিয়াপুর সারথি থিয়েটারের জুলফিকার আলী চঞ্চলের বিরুদ্ধে একাধিক সংগঠনের নামে অর্থ উত্তোলনের ব্যাপারে জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় যে অভিযোগ উত্থাপিত হয়েছে সেই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট গাইবান্ধার সংগঠনভুক্ত তার মূল সংগঠন সারথি থিয়েটার বাদে ৬টি জোটভুক্ত সংগঠনের সদস্যপদ সর্বসম্মতিক্রমে সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়। সংগঠনগুলো হচ্ছে শহিদ আলতাফ মাহমুদ সংগীতায়ন, সেলিম আলদীন নাট্যায়তন, ভোর হলো গাইবান্ধা শাখা, দোয়েল বাচিক বিদ্যায়তন, ভোর হলো সাংস্কৃতিক বিদ্যালয়, উদয় শঙ্কর নৃত্যায়ন দারিয়াপুর, গাইবান্ধা। তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ সমূহ তদন্তের জন্য ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। 

চলতি অর্থ বছরে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অধীনে চারুশিল্প ও থিয়েটার খাত থেকে সদর উপজেলার দারিয়াপুরের সাইনবোর্ড সর্বস্ব একই ব্যক্তি পরিচালিত ৮টি সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানকে ২ লাখ ৯০ হাজার টাকা অনুদান দেয়া হয়েছে বলে বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও অনলাইনগুলোতে গত ২২ জুন সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। গাইবান্ধা সদর উপজেলার ঘাগোয়ার বিজয় চন্দ্র বর্মন স্বাক্ষরিত সাংস্কৃতিক প্রতিমন্ত্রী বরাবরে এব্যাপারে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এই লিখিত অভিযোগের অনুলিপি গত ২১ জুন সোমবার জেলা প্রশাসক, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, পরিচালক, শিল্পকলা একাডেমি, ঢাকা, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন ও বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার কেন্দ্রীয় কমিটিতেও প্রেরণ করা হয়েছে।