কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নে প্রচারণায় এগিয়ে নতুন মুখ

কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নে প্রচারণায় এগিয়ে নতুন মুখ

শাহ আলম যাদু: তৃণমূল্যের ভোটারদের উৎসবের আমেজ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন দরজায় কড়া নাড়ছে। এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়নি নির্বাচন কার্যক্রম। তবে সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রচার প্রচারণা শুরু করেছেন। গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার ১নং কঞ্চিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী প্রচার-প্রচারনায় এগিয়ে ভোটের মাঠের নতুন মুখ জিএম সোহেল পারভেজ। তিনি কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহি সরকার পরিবারের মরহুম আব্দুস ছাত্তার সরকারের ছেলে। ছাত্রজীবন থেকে আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। প্রথম শ্রেণির একজন ঠিকাদার হিসেবে তিনি এলাকার বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড, হত-দরিদ্র জনগণকে বিভিন্নভাবে সাহায্য সহযোগিতা করে সকলের হৃদয় ছুঁয়েছেন। এরই মধ্যে নির্বাচন নিয়ে কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চলে চা দোকান থেকে শুরু করে প্রতিটি অলি-গলিতে চলছে নানা আলোচনা-পর্যালোচনা। শুরু হয়েছে সম্ভাব্য এই চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে গণসংযোগ। এলাকায় এলাকায় দৌড়ঝাঁপ।  ভোটাররা বলেন, তরুণ ঠিকাদার জিএম সোহেল পারভেজ সত এবং পরোপকারী। তার মতো মিষ্টভাষী, সৎ ও ন্যায় পরায়ণ একজন ব্যক্তিকে কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান হিসেবে বড় প্রয়োজন। তারা বলেন, তিনি ঠিকাদার হিসেবে সুনাম কুড়িয়েছেন। সোহেল পারভেজকে যোগ্য ও নির্লোভ একজন চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে তারা মনে করেন।
এক প্রতিক্রিয়ায় ঠিকাদার জিএম সোহেল পারভেজ বলেন, বৈশ্বিক মহামারি করোনাকালীন সময়ে জনপ্রতিনিধি না হয়েও এলাকার একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে অত্যন্ত গোপনে কর্মহীন ও অসহায়দের সাথে ছিলাম। আগামীতে এলাকার অবেহেলিত ও অসহায় মানুষের পাশে থেকে কাজ করতে চাই। আগামী নির্বাচনে কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে অনেকেই তোরজোর ও অনুরোধ করছেন। প্রাথমিক জনমত যাচাইয়ের পর নিজের প্রার্থীতা ঘোষণা করবেন বলে তিনি জানান। তিনি বলেন, যে অবস্থানেই থাকি না কেন, কঞ্চিপাড়াকে দুর্নীতি, জুয়া, সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত করার চেষ্টা চালিয়ে যাবো। তরুণ সমাজকে মাদক থেকে দুরে রাখতে তাদের ক্রীড়ামুখি করতে ইতিমধ্যে আমার বাবা-মার নামে ফুটবল টূর্ণামেন্ট চালু করেছি। যা অব্যাহত থাকবে। তিনি এলাকায় আগামীতে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা, এলাকার মানুষের পাশে থাকা এবং এলাকার উন্নয়নে নিজেকে উৎসর্গ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।